Dr.Abhi Niloy Roy

Your eyes never find anything that you mind doesn't know........ to enlighten something by burning myself

Operating as usual

Doctor ASKY

What is sleep paralysis?

[05/15/20]   [What is Herd Immunity and How Can We Achieve It With COVID-19?]

What is herd immunity?

When most of a population is immune to an infectious disease, this provides indirect protection—or herd immunity (also called herd protection)—to those who are not immune to the disease.

For example, if 80% of a population is immune to a virus, four out of every five people who encounter someone with the disease won’t get sick (and won’t spread the disease any further). In this way, the spread of infectious diseases is kept under control. Depending how contagious an infection is, usually 70% to 90% of a population needs immunity to achieve herd immunity.

How have we achieved herd immunity for other infectious diseases?

Measles, mumps, polio, and chickenpox are examples of infectious diseases that were once very common but are now rare in the U.S. because vaccines helped to establish herd immunity. We sometimes see outbreaks of vaccine-preventable diseases in communities with lower vaccine coverage because they don’t have herd protection. (The 2019 measles outbreak at Disneyland is an example.)

For infections without a vaccine, even if many adults have developed immunity because of prior infection, the disease can still circulate among children and can still infect those with weakened immune systems. This was seen for many of the aforementioned diseases before vaccines were developed.

Other viruses (like the flu) mutate over time, so antibodies from a previous infection provide protection for only a short period of time. For the flu, this is less than a year. If SARS-CoV-2, the virus that causes COVID-19, is like other coronaviruses that currently infect humans, we can expect that people who get infected will be immune for months to years, but probably not their entire lives.

What will it take to achieve herd immunity with SARS-CoV-2?

As with any other infection, there are two ways to achieve herd immunity: A large proportion of the population either gets infected or gets a protective vaccine. Based on early estimates of this virus’s infectiousness, we will likely need at least 70% of the population to be immune to have herd protection.

In the worst case (for example, if we do not perform physical distancing or enact other measures to slow the spread of SARS-CoV-2), the virus can infect this many people in a matter of a few months. This would overwhelm our hospitals and lead to high death rates.
In the best case, we maintain current levels of infection—or even reduce these levels—until a vaccine becomes available. This will take concerted effort on the part of the entire population, with some level of continued physical distancing for an extended period, likely a year or longer, before a highly effective vaccine can be developed, tested, and mass produced.
The most likely case is somewhere in the middle, where infection rates rise and fall over time; we may relax social distancing measures when numbers of infections fall, and then may need to re-implement these measures as numbers increase again. Prolonged effort will be required to prevent major outbreaks until a vaccine is developed. Even then, SARS-CoV-2 could still infect children before they can be vaccinated or adults after their immunity wanes. But it is unlikely in the long term to have the explosive spread that we are seeing right now because much of the population will be immune in the future.

Why is getting infected with SARS-CoV-2 to “get it over with” not a good idea?

With some other diseases, such as chickenpox before the varicella vaccine was developed, people sometimes exposed themselves intentionally as a way of achieving immunity. For less severe diseases, this approach might be reasonable. But the situation for SARS-CoV-2 is very different: COVID-19 carries a much higher risk of severe disease and even death.

The death rate for COVID-19 is unknown, but current data suggest it is 10 times higher than for the flu. It’s higher still among vulnerable groups like the elderly and people with weakened immune systems. Even if the same number of people ultimately get infected with SARS-CoV-2, it’s best to space those infections over time to avoid overwhelming our doctors and hospitals. Quicker is not always better, as we have seen in previous epidemics with high mortality rates, such as the 1918 Flu pandemic.

What should we expect in the coming months?

Scientists are working furiously to develop an effective vaccine. In the meantime, as most of the population remains uninfected with SARS-CoV-2, some measures will be required to prevent explosive outbreaks like those we’ve seen in places like New York City.

The physical distancing measures needed may vary over time and will not always need to be as strict as our current shelter-in-place laws. But unless we want hundreds of millions of Americans to get infected with SARS-CoV-2 (what it would take to establish herd immunity in this country), life is not likely to be completely “normal” again until a vaccine can be developed and widely distributed.

jamanetwork.com

Troponin Concentrations, Systolic and Diastolic Functions, and Incident Heart Failure Association

Association Between Circulating Troponin Concentrations, Left Ventricular Systolic and Diastolic Functions, and Incident Heart Failure in Older Adults

https://jamanetwork.com/journals/jamacardiology/fullarticle/2748990

jamanetwork.com This cohort study analyzes high-sensitivity cardiac troponin T levels and the associated cardiovascular risks among a cohort of older adults with no cardiovascular conditions enrolled in the Atherosclerosis Risk in Communities Study.

ama-assn.org

New BP guideline: 5 things physicians should know

https://www.ama-assn.org/delivering-care/hypertension/new-bp-guideline-5-things-physicians-should-know

ama-assn.org Evidence-driven recommendations mean big changes for patients and physicians to understand. Here is what doctors need to know.

forum.facmedicine.com

Workouts: A Way To Ease Severe Chronic Anxiety?

when I exercise routinely I appreciate an overall lower anxiety level and improvements in my mood, and many of my patients have experienced similar benefi

Reference.

https://forum.facmedicine.com/threads/workouts-a-way-to-ease-severe-chronic-anxiety.41435/

forum.facmedicine.com [IMG] Everyone experiences anxious moments now and then. But for those with Generalized Anxiety Disorder (GAD), the worry is frequent and...

forum.facmedicine.com

A Research Warns Irritable Bowel Syndrome Might Not Exist

A new study claims 13 million Brits with the disease may be suffering from a range of different conditions instead.

IBS has been described as an "umbrella diagnosis" and experts are concerned it may not be right A common bowel condition suffered by millions of Brits may not actually exist, research suggests.

Experts warn that more than 13 million Brits with Irritable Bowel Syndrome (IBS) may be having the cause of their problem ignored.

Symptoms include bowel problems such as gas, bloating and diarrhoea which blight the lives of sufferers who feel unable to socialise.

A review of 220 pieces of research concluded it may not be a single condition and symptoms are instead triggered by a range of causes, including poor sleep to stress, lack of exercise or an imbalance in gut bacteria.

Researchers said GPs should stop diagnosing patients with IBS and instead work out what it is in their life is causing the symptoms and treat it.

Lead author Ben Brown, of the British College of Nutrition and Health, said: “IBS is the most common gastrointestinal problem in the world and it can be very serious.

But it is an umbrella diagnosis based on symptoms. “People are being misdiagnosed by giving them a label that’s not really helping them because it’s not addressing the problem.”

A spokeswoman for Crohn’s and Colitis UK said: “Similar symptoms like diarrhoea and the regular and urgent need to use the toilet can lead to misdiagnosis.”

Read more at: https://forum.facmedicine.com/threads/a-research-warns-irritable-bowel-syndrome-might-not-exist.42482/

forum.facmedicine.com A new study claims 13 million Brits with the disease may be suffering from a range of different conditions instead. [IMG] IBS has been described as...

[04/23/16]   কিডনির প্রাথমিক রোগে বা অন্য কোনো কারণে কিডনি আক্রান্ত হয়ে ধীরে ধীরে মাসের পর মাস বা বছরের পর বছর ধরে যদি দুটো কিডনিরই কার্যকারিতা নষ্ট হতে থাকে তখন তাকে ক্রনিক বা ধীরগতিতে কিডনি ফেইলুর (Kidney Failure) বলা হয়। একটি কিডনি সম্পূর্ণ সুস্থ থাকলে এবং অপরটির কার্যকারিতা সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে গেলেও সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবনযাপন করা সম্ভব। দুটো কিডনিরই শতকরা ৫০ ভাগ বিনষ্ট হলেও শরীর সুস্থ ও স্বাভাবিক থাকে, যার ফলে একজন সুস্থ মানুষ (কিডনি ডোনার – Kidney Donor) তার নিকট আত্মীয় বা অন্য আর একজন কিডনি বিকল রোগীকে (কিডনি গ্রহণকারী) একটি কিডনি দান করেও সুস্থ থাকেন, স্বাভাবিক জীবনযাপন করেন। কেবল দুটো কিডনির ৫০ ভাগের উপর নষ্ট হলেই কিডনি বিকল হওয়ার প্রবণতা শুরু হয় এবং ৭৫ ভাগ নষ্ট হলেই শরীরের লক্ষণগুলো ধরা যেতে পারে আর ৯৫ ভাগের উপর নষ্ট হলে কৃত্রিম উপায়ে (ডায়ালাইসিস বা কিডনি সংযোজন) ছাড়া রোগীকে বাঁচিয়ে রাখা সম্ভব হয় না, যাকে বলে এন্ড স্টেজ রেলাল ফেইল্যুর (End Stage Renal Failure)।
কিডনি নষ্ট হয়ে যাওয়ার কারণ
১. গ্লোমেরুলো নেফ্রাইটিস বা কিডনির ছাকনি প্রদাহ রোগ ৫০-৫৫%।
২. ডায়াবেটিসজনিত কিডনি রোগ ১৫-২০%।
৩. উচ্চ রক্তচাপজনিত কিডনি রোগ ১০-১৫%।
৪. কিডনি বা প্রস্রাবের রাস্তায় পাথর ও অন্য কোনো কারণে বাধাজনিত রোগ ৭-১৯%।
৫. কিডনি বা প্রস্রাবের রাস্তায় জীবাণুজনিত রোগ ৫-৭%।
৬. বংশানুক্রমিক কিডনি রোগ ৩-৫%।
৭. ওষুধজনিত কিডনি রোগ ৩-৫%।
৮. অন্যান্য ও অজানা।
কিডনি নস্ট হবার উপসর্গ
আগেই উল্লেখ করা হয়েছে যে, দুটো কিডনির শতকরা পঁচাত্তর ভাগ কার্যকারিতা নষ্ট না হওয়া পর্যন্ত কিডনি বিকলের উপসর্গ দেখা যায় না। রোগী প্রাথমিক পর্যায়ে সামান্য ধরনের কিডনি রোগ থাকার দরুন গুরুত্ব অনুধাবন করতে পারে না। শতকরা ৭৫ ভাগের উপর কিডনি অকেজো হয়ে গেলে রোগীর ক্ষুধা মন্দা, আহারে অনীহা, বমি বমি ভাগ, বমি হওয়া, শরীর ক্রমান্বয়ে ফ্যাকাশে হয়ে যাওয়া, শারীরিক দুর্বলতা প্রভৃতি উপসর্গ দেখা দেয়। এছাড়াও প্রস্রাবের পরিমাণের পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়, রাতে প্রস্রাব করার প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। কোনো রকম চর্মরোগের উপসর্গ ছাড়াই শরীর চুলকায়, যখন তখন হেচকি ওঠে এবং অনেক ক্ষেত্রে খিঁচুনি হতে পারে। রোগী শেষ পর্যায়ে পৌঁছে গেলে নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট, তীব্র গতিতে নিঃশ্বাস-প্রশ্বাস, ঝিমানো ভাব, এমনকি এক পর্যায়ে রোগী জ্ঞানও হারিয়ে ফেলতে পারে।
রোগীকে পরীক্ষা করে রক্তের স্বল্পতা বোঝা যায়। অধিকাংশ রোগীর উচ্চরক্তচাপ (Hypertention) ধরা পড়ে। এছাড়া কোনো কোনো ক্ষেত্রে রোগীর কারণ সাপেক্ষে শরীরে পানি দেখা যেতে পারে। আবার অনেক ক্ষেত্রে চামড়া শুকিয়ে যেতে পারে। কিছু কিছু রোগীর হৃিপণ্ডের আবরণে পানি এবং হার্ট ফেইলুরের চিহ্ন দেখা যায়। অনেক ক্ষেত্রে শরীরের এমন কি হাত-পায়ের মাংসপেশী শুকিয়ে যায় যার দরুন রোগী সাধারণত চলাফেরার শক্তি হারিয়ে ফেলে।
কিডনি নস্ট রোগ নির্ণয়
ক্রনিক রেনাল ফেইলুর (Chronic Renal Failure) রোগ নির্ণয়ের জন্য রোগীর উপসর্গের ইতিহাস, শারীরিক পরীক্ষা ছাড়াও প্রাথমিকভাবে রক্তের ইউরিয়া (Serum Urea), ক্রিয়েটেনিন (Serum Creatinin) এবং ইলেকট্রোলাইট (Electrolyres)পরীক্ষা করা হয়। কিডনির কার্যকারিতা কমে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে রক্তের ইউরিয়া, ক্রিয়েটেনিন বেড়ে যায়। পটাশিয়ামের পরিমাণ বাড়তে থাকে ও বাইকার্বোনেট কমে যায়। এছাড়াও ফসফেট শরীরে জমতে শুরু করে, যার ফলে ক্যালসিয়াম কমে যেতে বাধ্য হয় এবং অন্যান্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও শুরু হতে থাকে। এরপরে কি কারণে ধীরগতিতে কিডনি বিকল হয়েছে তা বের করার জন্য প্রস্রাব পরীক্ষা করে এ্যালবুমিন (Albumin) আছে কিনা তা দেখা হয় এবং লোহিত ও শ্বেত কণিকা আছে কিনা তাও দেখে নেয়া হয়। প্রয়োজনের ২৪ ঘণ্টার প্রস্রাবের প্রোটিনের পরিমাণও দেখা হয়। প্রস্রাবে এ্যালবুমিন ২৪ ঘণ্টায় এক গ্রামের বেশি হলে প্রাথমিকভাবে কিডনি ফেইলুরের কারণ হিসেবে গ্লোমারুলোনেফ্রাইটিস ধরে নেয়া হয়।
কিডনির গঠন প্রণালী দেখার জন্য আলট্রাসনোগ্রাম এবং পেটের প্লেইন এক্স-রে করা হয়ে থাকে। কিডনির কার্যকারিতা শেষ পর্যায়ে গেলে দুটো কিডনির আকৃতি স্বাভাবিকের চেয়ে ছোট হয়ে যায়। যার কারণ গ্রোমারুলোনেফ্রাইটিস বা জীবাণুজনিত বলে মনে করা হয়। কিডনির আকৃতি ছোট না হয়ে যদি বড় হয়ে যায় এবং ভেতরের ক্যালিসেস বা শাখা-প্রশাখা নালীসমূহ ফুলে যায় তাহলে অবস্ট্রাকটিভ ইউরোপ্যাথিকে কিডনি বিকলের কারণ হিসেবে ধরা হয়। দুটো কিডনিতে যদি অনেকগুলো সিস্ট থাকে তাহলে বংশানুক্রমিক কিডনি রোগ বা পলিসিসটিক কিডনি ডিজিজ (Polycystic Kidney Disease) ভাবা হয়। এছাড়া পাথরজনিত কারণে বা প্রোস্টেটজনিত জটিলতায় কিডনি বিকল হলো কিনা তাও আলট্রাসনোগ্রাম ও এক্স-রের মাধ্যমে ধরা যেতে পারে।
উল্লিখিত পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াও কিডনি বিকল রোগীদের হেপাটাইটিস-বি ভাইরাস, সি-ভাইরাস, এইডস (AIDS) ভাইরাস আছে কিনা তাও দেখা প্রয়োজন। বুকের এক্স-রে, ইসিজি রক্তের হিমোগ্লোবিন, ব্লাড গ্রুপ, এইচএলএ টিস্যু এন্টিজেন এসব পরীক্ষাও বিশেষ ক্ষেত্রে প্রয়োজন হয়।
কিডনি নস্ট হবার চিকিত্সা ও প্রতিকার
কিডনি অকেজো রোগীর চিকিত্সা নির্ভর করে কি কারণে এবং কত পরিমাণে কিডনির কার্যকারিতা নষ্ট হয়েছে তার উপর। কেননা এমন অনেক কারণ রয়েছে যেগুলোকে আমরা সঠিক চিকিত্সার মাধ্যমে ভালো করে দিতে পারি, যেমন বাধাজনিত কিডনি রোগ। আবার কিছু কারণ আছে ভালো করা না গেলেও কিডনি আরো বেশি অকেজো না হয়ে যায় তার ব্যবস্থা নিতে পারি, যেমন উচ্চরক্তচাপ। অবশ্য যে কোনো কারণেই হোক না কেন দুটো কিডনির শতকরা ৯৫ ভাগের উপরে যদি নষ্ট হয়ে যায় তখন কোনোভাবেই কিডনির কার্যকারিতা ফেরানো সম্ভব হয় না। আর এসব ক্ষেত্রেই প্রয়োজন পড়ে ডায়ালাইসিস বা কিডনি সংযোজনের মাধ্যমে চিকিত্সার ব্যবস্থা করা। উল্লেখিত দু ধরনের চিকিত্সাই অত্যন্ত ব্যয়বহুল ও ঝুঁকিপূর্ণ। এজন্যই প্রয়োজন সঠিক সময়ে প্রাথমিক পর্যায়ে রোগ নির্ণয় করে বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকের মাধ্যমে কিডনি রোগের চিকিত্সা করানো। এর জন্য প্রয়োজন কিডনি রোগ সম্পর্কে সমাজ সচেতনতা, প্রাথমিক জ্ঞান অর্জন করা ও চিকিত্সা সেবার মান বৃদ্ধি করা। কেননা প্রতি বছর আমাদের দেশে প্রায় ২০ থেকে ২৫ হাজার কিডনি রোগী কিডনি অকেজো হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছে। এদের বাঁচাবার জন্য চাই চিকিত্সার সুযোগ-সুবিধা।
শুধু সরকারি পর্যায়ে এ ধরনের সুযোগ-সুবিধা সম্ভব নয়। তাই এগিয়ে আসতে হবে বেসরকারি উদ্যোক্তাকে ও সমাজের বিত্তবান ব্যক্তিবর্গকে। তৈরি করতে হবে অত্যাধুনিক ডায়ালাইসি, এবং কিডনি সংযোজনের ব্যবস্থা। আর কিডনি সংযোজনের জন্য নিকট আত্মীয়দের মধ্য থেকে ডোনার হিসেবে এগিয়ে আসতে হবে। কেননা দুটো সুস্থ কিডনির মধ্যে একটা নিকট অসুস্থ কিডনি রোগীকে দান করলেও স্বাভাবিক সুস্থ জীবন-যাপন করা যায় এবং সেক্ষেত্রে সামাজিক মর্যাদাও বৃদ্ধি পায়। তাহলেই হাজার হাজার কিডনি বিকল রোগীকে বাঁচিয়ে রাখা সম্ভব হবে।

[04/23/16]   পেট না কেটে শুধু মেশিনের সাহায্যে অপারেশন:
#পিত্তথলির পাথর অপাসারণ
#এপেনডিসেকটমী
#কিডনীর পাথর অপারেশন(PCNL)
#মুত্র থলী ও মুত্র নালীর পাথর অপারেশন(URS)
#প্রষ্টেট গ্রন্হির টিউমার অপারেশন(TURP)
#মূত্রথলীর টিউমার অপারেশন(TURBT)
#মূত্র নালীর সংকোচন অপারেশন (IOU/Urethroplasty)
এছাড়া পুরুষের অন্ডকোষের টিউমার ও অন্যান্য রোগের অপারেশন স্বল্প খরচে #এভারগ্রীণহেলথসেন্টারে

healthnewsbd.com

১৮ মাসে ১০৮ কেজি ওজন কমালেন আম্বানির ছেলে! | HealthNewsBD.com

healthnewsbd.com ১৮ মাসে ১০৮ কেজি ওজন কমালেন আম্বানির ছেলে! on April 11, 2016 আপনার মতামত দিন আন্তর্জাতিক ডেস্ক ভারতের প্রভাবশালী ব্যবসায়ী ও শীর্ষ ধনী মুকেশ আম্বানির ছেলে অনন্ত অম্বানি দীর্ঘ সময়ের প্রচেষ্টার স্থুলকায় শরীরের ওজন কমিয়ে ব্যাপক শোরগোল ফেলে দিয়েছেন। ২১ বছরের অনন্ত মাত্র দেড় বছরে ১০৮ কেজি ওজন কমিয়ে একেবার…

[03/16/16]   লেবুর রয়েছে নানা স্বাস্থ্য উপকারিতা। শুধু লেবুতেই নয়, লেবুর খোসাতেও রয়েছে নানারকম উপকারিতা। খাওয়া শেষে ফেলে না দিয়ে বিভিন্ন কাজে লাগানো যেতে পারে এটি। উপায় জানা নেই? চলুন জেনে নিই এটি ব্যবহারের উপায় ও উপকারিতা-

১. মুখের দুর্গন্ধ দূর করতে জুড়ি নেই লেবু বা কমলার খোসার। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এবং কিছুক্ষণ পরপর সারাদিন লেবু বা কমলার খোসা চিবাতে পারেন। এতে যেমন আপনার মাড়ি ভালো থাকবে তেমনি নিঃশ্বাসে থাকবে প্রাকৃতিক সজীবতা।

২. চিকেন রোস্ট রান্নার সময় খাবারে লেবুর সুঘ্রাণ পেতে দুই-এক টুকরো লেবুর খোসা দিতে পারেন। সুঘ্রাণের পাশাপাশি খাবারও হবে সুস্বাদু।

৩. রান্নাঘরের চিনির কৌটায় রেখে দিতে পারেন এক টুকরো লেবুর খোসা। এর ফলে চিনি থাকবে একেবারে ঝরঝরে।

৪. আলমারি বা ওয়ারড্রবকে কীটপতঙ্গ থেকে মুক্ত রাখতেও লেবুর খোসার জুড়ি নেই। লেবুর শুকনো খোসা শুকিয়ে একটি ছোটো পলিপ্যাকে নিয়ে মোজা কিংবা অন্তর্বাসের ড্রয়ারে রেখে দিন। দুর্গন্ধ তো দূর হবেই, সাথে সাথে আপনার পোশাক হবে দারুণ সুরভিত।

৫. জমে থাকা চা কিংবা কফির পট পরিষ্কার করতে পারেন লেবুর খোসা দিয়ে। এক্ষেত্রে কেটলিতে পানি নিয়ে লেবুর খোসা দিয়ে কিছুক্ষণ সেদ্ধ করতে হবে। এরপর ময়লা জায়গা পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে।

৬. কাটিং বোর্ডের সব ময়লা দাগ পরিষ্কার করতে লেবুর খোসা কেটে কয়েক ঘণ্টা রেখে দিন। দেখবেন একেবারে ঝকঝকে হয়ে গেছে।

৭. ফ্রিজের ভেতরে দুর্গন্ধ এড়াতে রেখে দিতে পারেন দুই এক টুকরো লেবুর খোসা। এতে ফ্রিজ থাকবে লেবুর সুগন্ধময়।

৮. মাইক্রোওয়েভের তেল চিটচিটে হলে বাটিতে পানি দিয়ে লেবুর খোসা ছেড়ে গরম করতে হবে। এরপর পানি দিয়ে শুকনো কাপড় দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে। এতেই মাইক্রোওয়েভ ঝকঝকে হয়ে যাবে।

৯. ত্বকে মেসেজ করে ধুয়ে ফেললে নরম, কোমল ও উজ্জ্বল ত্বক পাওয়া যায়।

[03/11/16]   ‘#বাংলাদেশে_প্রতি_সাত_জনে_একজন_কিডনি_রোগী’

বাংলাদেশের দু’টি গুরুত্বপূর্ণ হাসপাতালের জরিপ অনুযায়ী দেশটির প্রতি সাতজনের মধ্যে একজন কিডনি রোগে আক্রান্ত, যদিও চিকিৎসকরা বলছেন এর চিকিৎসাও এখন বাংলাদেশে সহজলভ্য।

আক্রান্তরা বলছেন চিকিৎসা থাকলেও সেটি অত্যন্ত ব্যয়বহুল।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন চিকিৎসা সরঞ্জাম ট্যাক্স কমানো ও দেশে উৎপাদনের ব্যবস্থাসহ সরকারিভাবে কিছু পদক্ষেপ নিলে কিডনি রোগের চিকিৎসার ব্যয় অনেকখানি কমিয়ে আনা সম্ভব।

বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের কিডনি বিভাগের ডায়ালাইসিস সেন্টারে একজন রোগী জানান ছয় মাস ধরে ডায়ালাইসিস নিচ্ছেন তিনি।

এই রোগীর সাথে থাকা তাঁর সন্তান জানান, চিকিৎসার জন্যে প্রতি মাসে ৩০/৪০ হাজার টাকা ব্যয় হচ্ছে তাদের।

কেউ কেউ আবার খরচ কমাতে রোগীকে বাসায় রেখে চিকিৎসা করান। শুধু ডায়ালাইসিসি করানোর জন্যে নির্ধারিত দিনে হাসপাতালে আনেন রোগীকে।

তেমনই একজন রাহেলা বেগম। তিনিও জানান ডায়ালাইসিস, ঔষধ, আনা নেয়ার খরচ-সব মিলিয়ে মাসে তাঁর ব্যয় ৩০-৪০ হাজার টাকা।

কিন্তু বাংলাদেশে কিডনি রোগের চিকিৎসা এতো কেন

এমন প্রশ্নের জবাবে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের কিডনি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক শহীদুল ইসলাম সেলিম বলেন, “একটা ডায়ালাইসিসি মেশিনের দাম দশ লাখ টাকা। এছাড়া প্রয়োজনীয় অনেক কিছুই বিদেশ থেকে আনা”।

সরকার ট্যাক্স কমিয়ে দিলে ডায়ালাইসিসের খরচ অনেক কমবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

কিন্তু কিডনির সব ধরনের রোগের চিকিৎসা সেবা কি পাওয়া যাচ্ছে বাংলাদেশে? কিডনি সংযোজনের ক্ষেত্রে কতটা সফল হচ্ছে বাংলাদেশের চিকিৎসকরা?

জবাবে অধ্যাপক সেলিম বলেন কিডনি সংযোজন হয় বাংলাদেশে বারটি সেন্টারে। বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে এ পর্যন্ত ৪৭৮ জনের কিডনি সংযোজন করা হয়েছে।

তবে রোগীদের জন্যে সহায়তার ব্যবস্থাও করেছে কিডনি ফাউন্ডেশন ও বারডেমের মতো কিছু প্রতিষ্ঠান।

বারডেম হাসপাতালের পরিচালক শহীদুল হক মল্লিক বলছেন প্রয়োজন হলে রোগীদের সহায়তার ব্যবস্থা হাসপাতাল থেকেই করা হচ্ছে। তিনি বলেন, গড়ে ১৮ হাজার জনের ডায়ালাইসিস হয় বারডেমে।

কিডনি ফাউন্ডেশনের সভাপতি অধ্যাপক হারুন অর রশীদ বলেন, প্রতি বছর শুধুমাত্র তাদের হাসপাতালেই গড়ে ৫০ হাজার রোগীর চিকিৎসা দিয়ে থাকেন।

কিন্তু বাংলাদেশে এতো মানুষ কিডনি রোগে হওয়ার কারণ কি

অধ্যাপক হারুন অর রশীদ বলেন, বঙ্গবন্ধু মেডিকেল আর কিডনি ফাউন্ডেশনের এক জরিপ অনুযায়ী দেশে প্রতি সাত জনে একজন কিডনি রোগী।

ডায়াবেটিস রোগীর ৩০/৪০ শতাংশ আর উচ্চ রক্তচাপে যারা ভুগছেন তাদের ১৮/২০ শতাংশ ক্রনিক কিডনি রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকেন। তিনি বলেন কিডনি যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেজন্যে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি চিকিৎসকদেরও সতর্ক হওয়ার প্রয়োজন রয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের অনেকে বলছেন সবাই সচেতন হলে কিডনি রোগে আক্রান্ত হওয়া রোগীর সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হবে।

সংকলিত।

Want your business to be the top-listed Clinic in Dhaka?

Click here to claim your Sponsored Listing.

Location

Category

Telephone

Address


Bangladesh Specialized Hospital
Dhaka
1205
Other Hospitals in Dhaka (show all)
Haf General Hospital & Physiotherapy Center Haf General Hospital & Physiotherapy Center
NORTH BADDA THANA ROAD
Dhaka, 1212

Metropolitan Medical Centre Limited Metropolitan Medical Centre Limited
46 Shahid Taj Uddin Ahmed Sarani
Dhaka, 1212

A New Generation Cardiac Centre & Neurosurgical Hospital in Dhaka.

ডিপিআরসি ডায়াগনস্টিক ল্যাব লি: ডিপিআরসি ডায়াগনস্টিক ল্যাব লি:
12/1 Ring Road, Shyamoli
Dhaka, 1207

ডিপিআরসি ডায়াগনস্টিক ল্যাব লিঃ,আপনার সকল শারীরিক পরীক্ষার জন্য আজই আসুন, ব্লাড ইউরিন এক্সরে এম

Mount Elizabeth Hospitals - Bangladesh Office Mount Elizabeth Hospitals - Bangladesh Office
House 10, Road 53, Gulshan 2
Dhaka, 1212

Mount Elizabeth Hospitals (Bangladesh office) is a one-stop service for patients seeking specialist expertise at Mount Elizabeth Hospitals Singapore.

United HOMEO Clinic United HOMEO Clinic
SAUDIA SUPER MARKET (2nd Floor), Farmget, Dhaka
Dhaka, 1215

Owner: Dr. Motiur Rahman Patwary MDH (USA), PhD (USA), DHMS (DK)

Al Helal Specialized Hospital Al Helal Specialized Hospital
150 Rokeya Sarani, Senpara Parbata, MIrpur 10, Dhaka
Dhaka, 1216

SPECIALIZED CARDIAC & GENERAL HOSPITAL FACILITY

PROBE Bangladesh PROBE Bangladesh
Plot No. 9 Road No. 1, Block-F Janata Co-operative Housing Society Ltd, Ring Rd, Dhaka 1207
Dhaka, 1207

PROBE Bangladesh Ltd is a joint venture Project between India-Bangladesh. Already setup Central Lab at Dhaka UDDIPAN Head Office and started setup Divisional and District Lab in Bangladesh.

Healthplus Physiotherapy & Rehabilitation Center Healthplus Physiotherapy & Rehabilitation Center
Holding No # 09, East Shewrapara, Mirpur
Dhaka, 1216

HealthPlus is an advanced pain management center to cure back,knee,shoulder pain,stroke management,Nutrition & Diet consultancy,Psychological Counseling.

KHAN Homoeo Center KHAN Homoeo Center
273/3 Elephant Road..katabon Dhal.
Dhaka, 1205

Since 1983 Dr.Md.Golam hossain khan is executing this clinic with care and dignity.By the blessing of ALL MIGHTY OF ALLAH complicated diseases like cancer,renal stone,leukaemia,asthma,stomatitis,cardiovascular disease, hemiplegia r treated successfully.

Farazy Hospital Ltd., Natun Bazar Branch. Farazy Hospital Ltd., Natun Bazar Branch.
1204, Madani Avenue, 100 Feet Road, Natun Bazar
Dhaka, 1212

To bring the best in healthcare in the city through the best possible service.

Japan Bangla Oro-Dental Care Japan Bangla Oro-Dental Care
Bashundhara
Dhaka, 1212

Samitivej HospitalThailand - Bangladesh Information office Samitivej HospitalThailand - Bangladesh Information office
50,Gulshan Avenue,(5th Floor), Gulshan Circle-1,Gulshan -1
Dhaka, 1212

Connecting our valuable patients with our specialists in Samitivej Hospital Thailand.

About   Contact   Privacy   FAQ   Login C